রেলওয়ের ওয়েম্যান পদে নিয়োগ পেলেন ১৭৬৭ জন [Bangladesh Railway JOB]

ছবি: প্রথম আলো

বাংলাদেশ রেলওয়ের রাজস্ব খাতভুক্ত ওয়েম্যান পদে ১ হাজার ৭৬৭ জনকে অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচিত প্রার্থীদের ২৪ ডিসেম্বর যোগদান করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চাকরিতে যোগদানের সময় প্রার্থীকে পরীক্ষার মূল প্রবেশপত্রের ফটোকপি, আবেদনের কপি, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, নাগরিকত্ব সনদের ফটোকপি, শিক্ষাগত সনদের ফটোকপি, রঙিন ছবি পাসপোর্ট সাইজ দুই কপি এবং কোটা সনদের ফটোকপির এক সেট সত্যায়িত করে জমা দিতে হবে।

আরও পড়ুনঃ 
বাংলাদেশ ব্যাংক নেবে সহকারী পরিচালক, নেই আবেদন ফি [Bangladesh Bank JOB]

নির্বাচিত প্রার্থীদের মহাব্যবস্থাপক (পূর্ব), বাংলাদেশ রেলওয়ে, সিআরবি, চট্টগ্রাম এবং মহাব্যবস্থাপক (পশ্চিম), বাংলাদেশ রেলওয়ে, রাজশাহী বরাবর যোগদানপত্র জমা দিতে হবে।

চাকরিতে যোগদানের সময় প্রার্থীকে বিভাগীয় চিকিৎসা কর্মকর্তার কার্যালয়, বাংলাদেশ রেলওয়ে, ঢাকা/ রাজশাহী/ সিআরবি, চট্টগ্রাম অথবা সিভিল সার্জনের কাছ থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার সনদ নিয়ে জমা দিতে হবে।

কোনো প্রার্থী স্বাস্থ্য পরীক্ষায় অনুপযুক্ত বিবেচিত হলে কোনো কারণ দর্শানো ছাড়াই নিয়োগপত্র বাতিল হবে। প্রার্থীর চারিত্রিক ও পূর্বকার্যকলাপ সম্পর্কে পুলিশ ভেরিফিকেশন না পাওয়া পর্যন্ত এ নিয়োগ সাময়িক বলে বিবেচিত হবে।


আরও পড়ুনঃ ব্র্যাক ব্যাংকে চাকরি, আবেদন স্নাতক পাসে [Brac Bank]

কোনো প্রার্থী পুলিশ ভেরিফিকেশনে অনুপযুক্ত বিবেচিত হলে কোনো কারণ দর্শানো ছাড়াই এ নিয়োগপত্র বাতিল হবে। কোনো প্রার্থীর দাখিল করা সনদ বা কাগজপত্র ভবিষ্যতে ভুয়া বা ত্রুটিপূর্ণ প্রমাণিত হলে এ নিয়োগপত্র বাতিলসহ তাঁর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


কোনো প্রার্থী বিদেশি কোনো নাগরিককে বিয়ে করলে অথবা বিয়ের জন্য অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়ে থাকলে এ নিয়োগপত্র বাতিল বলে গণ্য হবে। নির্ধারিত সময়ে চাকরিতে যোগদানের পূর্বে এ–সংক্রান্ত ৩০০ টাকার একটি নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে বন্ড সম্পাদন করে দাখিল করতে হবে।


চাকরিতে যোগদানের পর প্রথম দুই বছর শিক্ষানবিশকাল হিসেবে গণ্য হবে। শিক্ষানবিশকালে যেকোনো প্রার্থীকে চাকরিতে বহাল রাখা অনুপযোগী বলে বিবেচনা করা হলে কোনো কারণ দর্শানো ছাড়াই প্রার্থীকে চাকরিচ্যুত করা হবে অথবা শিক্ষানবিশকাল বৃদ্ধি করা যাবে।


বিভাগীয় প্রশিক্ষণ সম্পন্ন না করলে এবং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হলে কোনো শিক্ষানবিশকে কোনো নির্দিষ্ট পদে স্থায়ীকরণ করা হবে না। এ নিয়োগপত্রের ফলে স্থায়ী চাকরির জন্য দাবি করা যাবে না। যেকোনো সময় কোনো কারণ দর্শানো ছাড়াই ১৫ দিনের নোটিশে প্রার্থীকে চাকরি থেকে বরখাস্ত বা অপসারণ করা যাবে।


আরও পড়ুনঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে আবেদন শুরু ১৮ ডিসেম্বর, নম্বর বন্টন ও আবেদনের যোগ্যতা প্রকাশ [Dhaka University Admission]


কোনো প্রার্থী স্বেচ্ছায় চাকরি ত্যাগ করলে কমপক্ষে ৩০ দিন আগে কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানাতে হবে। এ ক্ষেত্রে তাঁর সর্বশেষ এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা দিতে হবে।


কোনো প্রার্থী নিয়োগপত্রে নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে চাকরিতে যোগদানে ব্যর্থ হলে তাঁর নিয়োগপত্র বাতিল বলে গণ্য হবে। নিয়োগপত্র বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিজ নিজ পদায়নকৃত কর্মস্থলে যোগদান করতে পারবেন।


নিয়মিত চাকুরি এবং শিক্ষা সংক্রান্ত নিউজ পেতে ফেসবুক পেজ , ফেসবুক গ্রুপ এবং টুইটার হেন্ডেল এখনই ফলো করুন।

Post a Comment

0 Comments